আদিনা মসজিদ কি সত্যিই মসজিদ?

……………..পরবর্তীতে দেখলাম  রজনীকান্ত চক্রবর্তী আমাদের ততটাও হতাশ করেন নি। প্রবাসী পত্রিকায় ‘পান্ডুয়া ভ্রমণ’ নামক রচনায় তিনি লিখেছেন, “আমি সাতাইশ বৎসর পূর্ব্বে একবার পান্ডুয়া দেখিতে গিয়াছিলাম…তখন আদিনার ভিতর বিস্তর হিন্দু দেবদেবীর মূর্তি দিয়া খচিত নামাজের স্থানে উঠিবার সোপান দেখিয়াছিলাম। যেমন মসজিদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ স্খলিত হইতেছিল,অমনি মুসলমান ভয়ে লুক্কায়িত গণেশ কার্ত্তিকেয় কৃষ্ণ বিষ্ণু বাহির হইয়া পড়িতেছিল। সে সকল মূর্তির নাক প্রায় ভাঙ্গা ছিল। বেচারা কালাপাহাড়ের উপর তার কারণ অর্পিত হইত। এখন সে সকল মূর্তি দেখা গেল না। কোথায় গেল ?” ……….. »

 

হেমতাবাদের পর কালিয়াগঞ্জ : জিহাদী তান্ডব অব্যহত

image

image

image

image

উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদের পর এবার ঐ জেলারই কালিয়াগঞ্জ, আবার আক্রান্ত হল হিন্দু মন্দির।

গত 18 জুলাই রাতে দুস্কৃতীদের হামলার শিকার হল কালিয়াগঞ্জের ৭ নং ভান্ডার গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত বাঘন বটতলার হিন্দু মন্দির। হেমতাবাদের মত এখানেও দুস্কৃতীরা হামলার পরে বিগ্রহগুলির মাথা কেটে নিয়ে যায়। গত কাল সকালে এই ঘটনা প্রকাশ হওয়া মাত্র এলাকায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। স্থানীয় হিন্দুরা কালিয়াগঞ্জ থেকে রায়গঞ্জ জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বলে খবর পাওয়া গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে কালিয়াগঞ্জ থানার আইসি স্থানীয় বিডিওর সাথে এলাকায় এসে CPI(ML)-এর নেতা জগদীশ রাজভড় ও কংগ্রেসের নেতা উত্তম ঘোষের সঙ্গে আলোচনা করে মূর্তিগুলিকে বিসর্জন দিয়ে দেন। বিকালে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এক সর্বদলীয় সভার আয়োজন করা হয় যেখানে একটি

শান্তিকমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তার করার ব্যাপারে কোন সদর্থক ইঙ্গিত না পাওয়ায় এলাকার হিন্দুরা যথেষ্ট ক্ষুব্ধ বলে খবর পাওয়া গেছে।