হিন্দু রোগী এলেই খুন করব, হুমকি এই ডাক্তারের

sssssssssssssssssssssssএতদিন জেহাদের নামে ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের হত্যার হুমকি দেওয়ার মতো ঘটনা দেখতে পাওয়া গিয়েছে। কিন্তু এবার যে ঘটনা প্রকাশ্যে এল, জানলে আপনি চমকে উঠবেন। মুম্বইয়ের এক ডাক্তার হুমকি দিলেন, তাঁর ক্লিনিকে কোনও হিন্দু রোগী এলেই তাঁকে হত্যা করবেন  >>

পশ্চিমবাংলার জেলায় জেলায় আইএস ঘাঁটি : নবান্নকে চিঠি কেন্দ্রের

ISIS-591990আইএস তৎপরতার বিষয় নিয়ে কী ভাবছে রাজ্য, পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে এমনই চিঠি দিয়ে জানতে চাইলো কেন্দ্র। বিশেষ করে বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী পশ্চিমবঙ্গের তিন জেলা (মালদা, মুর্শিদাবাদ, নদীয়া) র পরিস্থিতি রীতিমতো উদ্বেগজনক  >>

মুন্সীগঞ্জে সরস্বতী প্রতিমা ভাঙচুর, আহত ৪

92ed5a35f2a63b647d7dcc243d4417b9-5892fc26b8d77মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার খিদিরপাড়া ইউনিয়নে পূর্ব শত্রুতার জেরে সরস্বতী দেবীর প্রতীমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে  >>

তিন তালাকের বিরুদ্ধে পিটিশন

তালাক, তালাক, তালাক। আইন আদালত ছাড়া, কেবল মুখে তিনবার তালাক বলেই এখনো অনেক পুরুষ শেষ করে দেন দাম্পত্য সম্পর্ক। এমন ব্যবস্থা বন্ধে ভারতে এক আর্জিতে সই করেছেন ৫০ হাজার নারী।

ভারতীয় মুসলিম মহিলা আন্দোলনের নেতৃত্বে ঐ আর্জিতে তারা উল্লেখ করেছেন, এভাবে তালাক বা বিচ্ছেদ ধর্মীয় বিধান সম্মত নয়। সংস্থাটির সাম্প্রতিক এক হিসেব অনুযায়ী দেশটির ৯২ শতাংশ মুসলিম নারী চান মৌখিকভাবে দেয়া তালাকের ব্যবস্থার অবসান ঘটুক। সেজন্য জাতীয় নারী কমিশনের কাছে এ নিয়ে কার্যকর উদ্যোগ নেবার আহ্বান জানান তারা।

আর্জিতে সই করেছেন গুজরাট, মহারাষ্ট্র, রাজস্থান, মধ্য প্রদেশ, কর্ণাটক, তামিল নাড়ু, তেলেঙ্গানা, পশ্চিমবঙ্গসহ আরো কয়েকটি রাজ্যের নারীরা।

অমুসলিম নারীদের ধর্ষণ করা মুসলিমদের জন্য বৈধ’ দাবী অধ্যাপিকার

‘অমুসলিম নারীদের ধর্ষণ করা মুসলিমদের জন্য বৈধ’ ! এমনকি মহান আল্লাহ বিশেষ ক্ষেত্রে  অমুসলিম নারীদের ধর্ষণের অনুমতি দিয়েছেন’  এমনটাই মন্তব্য করেছেন মিসরের আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অধ্যাপিকা। সরাসরি সম্প্রচারিত একটি ইসলামী সওয়াল – জবাবের অনুষ্ঠানে তিনি এমন মন্তব্য করেন ।

1তবে এই মন্তব্যের পর বিশ্বজুড়ে ব্যাপক সমালোচনা শুধু নয় তোপের মুখেই  পড়েছেন সুয়াদ সালেহ নামের ওই অধ্যাপিকা। সম্প্রতি টেলিভিশনে দেয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, আল্লাহ মুসলমানদের অমুসলিম নারীদের ধর্ষণের অনুমতি দিয়েছেন।

তার এমন মন্তব্যকে ইতমধ্যে ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে প্রতিবাদ চলছে বিশ্বজুড়ে। অনেকেই বলছেন, একজন নারী হয়ে নারীর মর্যাদা খাটো করে ইসলামকে প্রশ্নবিদ্ধ করার গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত তিনি । এছাড়া দেশটির সুনামধন্য একটি টেলিভিশনে এই বক্তব্য প্রকাশকেও অনেকেই দেখছেন ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ।

তিনি বলেন, কোনো মুসলিম পুরুষ চাইলে দাষীদের সঙ্গেও যৌন সম্পর্ক করতে পারবে। এটা বৈধ। মুসলিমদের সঙ্গে শত্রুপক্ষের যুদ্ধের সময় মুসলিম পুরুষরা অমুসলিম নারীদের ধর্ষণ করতে পারবে।

এ সময় তিনি ইসরায়েলের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, মুসলিম পুরুষরা ইসরায়েলের নারীদের ধর্ষণ করলে সেটি অবৈধ হবে না। মুসলিম পুরুষরা যাতে ইসরায়েলি নারীদের ধর্ষণ করে সেজন্য উৎসাহও দেন এই অধ্যাপিকা।

সুয়াদ সালেহ বলেন, যুদ্ধবন্দী নারীরা মুসলিম সেনাপতিদের সম্পত্তি। সেনাপতিরা নিজেদের স্ত্রীর সঙ্গে যেভাবে যৌন সম্পর্ক করে ঠিক একইভাবে এই বন্দী নারীদের সঙ্গেও করতে পারবে।

মিসরের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপিকার এই সাক্ষাতকার প্রকাশের পর ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়েছে। অনেকেই বলছেন, ইসলামের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাতেই এসব মনগড়া মন্তব্য করেছেন সুয়াদ সালেহ।