হিন্দু-সহ বিভিন্ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তার দাবি জানিয়ে শেখ হাসিনাকে চিঠি দিলো ঐক্য পরিষদ

বাংলাদেশের নির্বাচন আসন্ন। আর এইসময়েই বাংলাদেশের ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা সবথেকে বেশি আক্রমণের শিকার হন। তাদের বাড়িঘর ভাঙচুরসহ আগুন দেওয়া, ভোট দিতে না দেওয়া কিছুই বাকি থাকে না। এমতবস্থায় নির্বাচনের পূর্বে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের সবচেয়ে অগ্রণী মানবধিকার সংগঠন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি দিয়ে সংখ্যালঘুসহ বিভিন্ন দাবি জানালো। ঐক্য পরিষদ চট্টগ্রাম পার্বত্য অঞ্চলে বৌদ্ধদের ওপর   অত্যাচার বন্ধে শুধু শান্তি চুক্তিতে আটকে না থেকে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠা ও নিরাপত্তার দাবি জানিয়েছে। এছাড়া সারাদেশে অর্পিত সম্পত্তির প্রত্যার্পণ  আইন কার্যকর করার দাবি জানানো হয়। অর্পিত সম্পত্তির প্রত্যার্পণ  আইন-এ বর্ণিত ‘ক’ তপশীল জমি এখনো ভুক্তভোগীরা ফেরত পায়নি। তা দ্রুত ফেরত দেবার দাবি জানানো হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে লেখক এবং ইতিহাসবিদ শান্তনু সিংহ বলেন,”বাংলাদেশের হিন্দুদের বর্তমান পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক। যে আওয়ামী লীগকে ভারতপন্থী বলে ধরা হয়,যাদেরকে ধর্মনিরপেক্ষ বলে ধরা হয়,তাদের কর্মীরাই বেশি হিন্দু নির্যাতনে জড়িত। জমি দখল  ও হিন্দু মেয়েদের ধর্মান্তকরণের মতো কাজে জড়িত আওয়ামী লীগের নিচুতলার কর্মীরা”। এমতাবস্থায় হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেওয়া চিঠি সংখ্যালঘু হিন্দু সহ অন্যান্য সম্প্র্রদায়ের কতটা উপকারী হবে, তা একমাত্র সময়ই বলবে।
Advertisements