ইসলাম অবমাননার দায়ে আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হলো হিন্দু গ্রাম, রেহায় পায়নি মহিলারাও

ইসলাম অবমাননার জন্য কোথাও শিরোচ্ছেদ হচ্ছে তো কোথাও গুলি করে মারা হচ্ছে, কোথাও বাড়িঘর জ্বলছে তো কোথাও জ্বলছে শরীর। চিত্রটা মোটামুটি এক যে ইসলামের উপর প্রশ্ন তুলবে তাকেই পেতে হবে চরম শাস্তি সে সাত সমুদ্র তেরো নদীর পারের সভ্য ফ্রান্স হোক বা তৃতীয় বিশ্বের বাংলাদেশ।

এই ঘটনা বাংলাদেশের কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার পূর্বধইর পূর্ব ইউনিয়নের বাঙ্গরা থানার কোরবানপুর গ্রামের ঘটনা যেখানে রবিবার বিকেলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার দায়ে হাজার হাজার মুসলমান হিন্দু সম্প্রদায়ের ছয়টি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর করে লুঠপাট করে । নারীদের শ্লীলতাহানি করে । যদিও হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

বিগত সপ্তাহে ইসলাম অবমাননার দায়ে ফ্রান্সে কট্টর ইসলামী মৌলবাদীদের হাতে প্রাণ যায় একাধিক ব্যক্তির। যার ফলে সে দেশের প্রেসিডেন্ট ইমান্যুয়েল ম্যাক্রো ইসলামের কট্টর বাদের বিরুদ্ধে করা পদক্ষেপ নেন। বন্ধ করে দেওয়া হয় জঙ্গি যোগ থাকা বিভিন্ন মসজিদ,জঙ্গি যোগ থাকা ব্যক্তিদের খোঁজ শুরু হয় ,সরকারি উদ্যোগ এ দেখানো হয় মহম্মদের চিত্র। ম্যাক্রোর এই কড়া পদক্ষেপের পরেই নড়ে ওঠে গোটা বিশ্ব। একদিকে মুসলিমদেশ গুলি যখন ফরাসী পণ্য বয়কটের ডাক দিয়ে এর বিরোধিতা শুরু করেছে ঠিক তখন ভারত ,আমেরিকার মতো দেশ গুলি ইসলামের কট্টরবাদের বিপক্ষে ফ্রান্সের পশে দাঁড়িয়েছে।

ঢাকা ট্রিবিউন সূত্রে জানা যায়, শনিবার (৩১ অক্টোবর) কোরবানপুরের শংকর দেবনাথ ও কৃষাণ দেবনাথ ফ্রান্সকে সমর্থন করে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেয়। সঙ্গে সঙ্গে ঐ ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয় । রবিবার পুলিশ অভিযুক্তসহ দুজনকে গ্রেফতার করে জেল হেফাজতে পাঠায় । কিন্তু তাতেই থেমে থাকেনা বিষয় টি ইসলামের উগ্রতার সামনে জ্বলতে থাকে হিন্দু সম্প্রদায়ের একধিক বাড়ি।

কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আজিমুল আহসান জানান,পোস্ট নিয়ে এলাকায় যাতে কোনো সংঘাত ও সহিংসতা না ঘটে, সে জন্য গতকাল বিকেলে কোরবানপুর জিএম উচ্চবিদ্যালয় মাঠে এক সম্প্রীতি সভা করে বাঙ্গরা বাজার থানার পুলিশ। এতে স্থানীয় বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন। সভা চলাকালে খবর আসে অভিযুক্ত শংকর দেবনাথের বাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছে। পরে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান বনকুমার শিবের বাড়িতেও আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। সঙ্গে সঙ্গে পুড়ে ছারখার হয়ে যায় একাধিক বাড়ি।

ইউপির চেয়ারম্যান বনকুমার শিব বলেন, ‘আমার বাড়িঘর আগুন লাগিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছে।’ বাঙ্গরা বাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, মুঠোফোন ট্রেকিংয়ের মাধ্যমে দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।এই দিনের অগ্নিসংযোগের ঘটনায় এ পর্যন্ত তিনটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় যথাক্রমে ৯১, ৮৫ ও ৮৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। আরও মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর বলেন, ‘কোরবানপুরে চেয়ারম্যানের বাড়িসহ কয়েকটি বাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছে। প্রশাসন তদন্ত করে ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। কোনো ধরনের উসকানি বরদাশত করা হবে না। জেলা পুলিশ সুপার এবং আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।’

এই বিষয়ে বাংলাদেশের একজন মুক্তিযোদ্ধা ও সেন্টার ফর রিসার্চ ইন ইন্দো-বাংলাদেশ রিলেশন এর রিসার্চার বিমল প্রামাণিক সংহতি সংবাদ কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে বলেন ”বাংলাদেশ এখন অনেক বেশি অসহিষ্ণু হয়ে পড়েছে। যে কোনো অজুহাতেই হিন্দুদের বাড়ি ঘর জ্বালিয়ে লুঠপাট করা ,হিন্দু মেয়েদের শ্লীনতাহানি করা ,হিন্দু মন্দির ভাংচুর করা এখন রোজকার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর সেইসব ঘটনায় আওয়ামী লীগ সরকার ও সাধারণ মুসলিমরাই বেশি ঘটাচ্ছে। বাংলাদেশ এর হিন্দুরা এখন সাঁড়াশি আক্রমণের মাঝে পরে গেছে একদিকে আওয়ামী লীগ তো অন্য দিকে জামাত। হিন্দুদের রক্ষা করার কেউ নেই পাকিস্তানের থেকেও খারাপ পরিস্থিতি এখন বাংলাদেশের।”

যে কারণে ফ্রান্সে পরপর হয়ে গেল এতগুলি নৃশংস খুন ,তারপরে সেই একই কারণে রাশিয়া ও কানাডায় খুন , শুধু তাই নয় সেই বিশেষ কারণে কিছুদিন আগেই বাংলাদেশ এ পিটিয়ে মেরে জ্বালিয়ে দেওয়া হলো এক মুসলিম যুবক কে ,সেই কারণ টি হলো ইসলামের অবমাননা। হ্যা ইসলামের অবমাননা। এই কট্টরবাদের শেষ কোথায় ? জানতে চাইছে সভ্য সমাজ।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s