রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ রুখতে রাজ্যগুলিকে সতর্ক করলেন রাজনাথ

rohinga onuprobesh rukteবাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে রাজ্যগুলিকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। বৃহস্পতিবার নবান্ন সভাগৃহে বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী পশ্চিমবঙ্গ, অসম, ত্রিপুরা, মেঘালয় ও মিজোরামের প্রশাসনিক প্রধান ও শীর্ষকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে ওই আহ্বান জানান রাজনাথ। সূত্রের খবর, বৈঠকে তিনি জানান, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের একটা অংশ এদেশে অনুপ্রবেশ করার মতলবে রয়েছে। তাদের আড়ালে জঙ্গিরা ঢোকার চেষ্টা চালাচ্ছে। রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতেই হবে। এই বিষয়ে রাজ্যগুলির সহযোগিতাও চান তিনি। সূত্রের খবর, যে ৪৪ জন রোহিঙ্গা শিশুকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্র, তা নিয়ে জোর আপত্তি রয়েছে এ রাজ্যের। গত সেপ্টেম্বর মাসে এ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থও হয়েছে রাজ্য শিশু কমিশন। সেই আপত্তির বিষয়টি এদিনের বৈঠকেও জানিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মানবিক কারণেই যে ওই শিশুদের আশ্রয় দেওয়া হয়েছে, তাও স্পষ্ট করে দেওয়া হয় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সামনে।
এদিনের বৈঠকে রাজ্যের তরফে পেশ করা রিপোর্টে ওই ৪৪ জন রোহিঙ্গা শিশুর প্রসঙ্গটি উল্লেখ করা হয়েছে। সূত্রের খবর, এই মুহূর্তে রাজ্যের বিভিন্ন হোমে ২৪ জন রোহিঙ্গা শিশু রয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন সংশোধনাগারে রয়েছে আরও ২০ জন রোহিঙ্গা শিশু এবং তাদের মায়েরা। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে ওই ৪৪ জন রোহিঙ্গা শিশুকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়। প্রশাসনিক সূত্রের খবর, যে শিশুদের ফেরত পাঠানোর কথা বলা হয়েছিল, তাদের প্রত্যেকেরই বয়স ছয় বছরের কম। এহেন দুগ্ধপোষ্য শিশুদের মানবিক কারণেই ফেরত পাঠাতে রাজি হয়নি রাজ্য সরকার। তবে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে রাজ্য সরকার যে বদ্ধপরিকর, তাও জানিয়ে দেওয়া হয় বৈঠকে। নারী ও শিশু পাচারের লক্ষ্যে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের শিবিরগুলিতেও যে পাচার চক্রের আনাগোনা বাড়ছে, বৈঠকে পেশ করা রাজ্যের রিপোর্টে তাও উল্লেখ করা হয়েছে। এদিনের বৈঠকে বিএসএফের তরফে জানানো হয়েছে, গত ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী রাজ্যে অনুপ্রবেশের সময় ৮৭ জন রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়। তাদের মধ্যে ৭৬ জনকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। বাকিরা আইনের হেফাজতে রয়েছে। এদিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জাল নথিপত্র বানিয়ে অনুপ্রবেশ করার চেষ্টা চালাচ্ছে দেশবিরোধী শক্তি। তা নিয়ে আমাদের সবাইকে বাড়তি সতর্ক থাকতে হবে। সীমান্ত সুরক্ষা কেন্দ্রীয় সরকারের অগ্রাধিকার তালিকায় রয়েছে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s