দিল্লীতে গ্রেপ্তার নারী পাচারচক্রের মাথা মুসলিমা বিবি

আন্তঃ রাজ্য নারী পাচারকারী চক্রের প্রধান মাথা মুসলিমা বিবি। পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও বিহার,উত্তরপ্রদেশ জুড়ে মেয়ে পাচারের নেটওয়ার্ক চালায় সে। সে গত একবছরে শুধু পশ্চিমবঙ্গ থেকে ৫০-এর বেশি মেয়েকে টোপ দিয়ে দিল্লী ও হরিয়ানার যৌনপল্লীতে বেচে দিয়েছে। গত কয়েকমাস আগে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবন এলাকার পাচার হয়ে যাওয়া ছ’টি মেয়েকে দিল্লির নিষিদ্ধপল্লী থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন সুন্দরবন জেলার পুলিশ আধিকারিকরা। তখন উদ্ধার হওয়া মেয়েরা  পিঙ্কি পান্ডার নাম বলেন। এরপর  পিঙ্কি পান্ডার খোঁজে তদন্ত শুরু করেন গোয়েন্দারা। কিন্তু তদন্তে উঠে আসে মুসলিমা বিবির নাম – যা চমকে দেয় গোয়েন্দাদের। মুসলিমা বিবিই নিজের নাম পাল্টে হিন্দু নাম পিঙ্কি পান্ডা নিয়ে গরিব পরিবারের হিন্দু মেয়েদেরকে দিল্লিতে মোটা মাইনের কাজ পাইয়ে দেবার টোপ দিতো। আর সেই ফাঁদে পা দিলেই মেয়েদেরকে দিল্লী ও হরিয়ানায় যৌনপল্লীতে বিক্রি করে দিতো। গত শুক্রবার, ২০শে অক্টোবর রাতে সেই মুসলিমা বিবিকে দিল্লীর অভিজাত এলাকার ফ্ল্যাট থেকে গ্রেপ্তার করলো পুলিশের স্পেশাল অপারেশন গ্রূপ। এই বিষয়ে সুন্দরবন জেলার পুলিশ সুপার তথাগত বসু বলেন, ”ওই পাচারকারীকে ধরার কাজে দিল্লী পুলিশ ও স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন শক্তিবাহিনী সাহায্য করেছে। প্রায় দীর্ঘ দশবছর ধরে মুসলিমা বিবিকে খোঁজা হচ্ছিলো”। কয়েকদিনের মধ্যে তাকে কলকাতায় নিয়ে আসা হবে। তাকে জেরা করে আরো অনেক পাচার হয়ে যাওয়া মেয়ের খোঁজ পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন গোয়েন্দারা।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s