ভরতপুরের স্কুলে ইভটিজিংকে কেন্দ্র করে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা

স্কুলের মধ্যে এক ইভটিজিংয়ের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফের সাম্প্রাদিয়ক উত্তেজনায় গত ৪ঠা অগাস্ট, শুক্রবার উত্তপ্ত হয়ে উঠল মুর্শিদাবাদ জেলার ভরতপুর থানার অন্তর্গত গুন্দুরিয়া গ্রাম। এর জেরে উত্তেজনা ছড়িয়েছে সংলগ্ন এলাকায়।ঘটনার বিবরণে প্রকাশ, এদিন দুপুরে গুন্দুরিয়া হাইস্কুলে ক্লাস চলাকালীন নবম শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রীকে কটূক্তি করে ওই ক্লাসেরই কয়েকজন ছাত্র। এর প্রতিবাদ করে তাদেরই চারজন সহপাঠী।এর জেরে চার ছাত্রকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। স্কুলের এই সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায় গুন্ডুরিয়া ও পলিশা গ্রামের মধ্যে। ঘটনার খবর শুক্রবার দুপুরে ভরতপুর থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। কিন্তু অভিযোগ, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে এসে কিছু বাড়িতে ভাঙচুর চালায়। বিনা কারণে পুলিশ একজন যুবককে আটক করে বলেও অভিযোগ।
স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ‘স্কুলের ক্লাস চলাকালীন এক ছাত্রীকে কটূক্তি করে কিছু ছাত্র।
এর প্রতিবাদ করলে গুন্দুরিয়া নতুনপাড়া গ্রামের পাঁচজন ছেলেকে মারধর করে তারা। এতে আহত হয় ওই পাঁচ ছাত্র।কিন্তু এই ঘটনার জেরে পুলিশ গ্রামে গিয়ে বৃন্দাবন পাল নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ। বাড়ির চাল, আসবাবপত্র ভাঙচুর করা হয় বলে অভিযোগ করেন বৃন্দাবন পাল। অন্য সম্প্রদায়ের কিছু দুষ্কৃতী ও ওইগ্রামের কিছু বাড়িতে হামলা চালায় বলেও অভিযোগ গ্রামবাসীদের ।
ঘটনার জেরে গোটা গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। গুন্দুরিয়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক বিদ্যাসাগর মন্ডল বলেন, ‘স্কুলের মধ্যে এইভাবে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়াবে বুঝতে পারিনি। তবে যেসব ছাত্র কটূক্তি করেছে তাদের চিহ্নিত করে প্রশাসনের উচিত ব্যবস্থা নেওয়া।’ মুর্শিদাবাদ জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে। ঘটনার জেরে মঙ্গোল মাঝি নামে দশম শ্রেণির এক ছাত্রকে আটক করেছে পুলিশ।
সূত্র : দৈনিক যুগশঙ্খ

Advertisements