আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেল করা মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের ভরতি নেবার দাবি

ফের গোলমাল আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে। এবার ভরতিকে কেন্দ্র করে উপাচার্যকে হেনস্তার উঠলো তৃণমূল কংগ্রেস ছাত্র পরিষদ পরিচালিত ছাত্র সংসদের বিরুদ্ধে। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ২৭ শে জুলাই, বৃস্পতিবার ক্যাম্পাসে গেলে প্রথমে উপাচার্যকে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। তিনি তখন চলে যান। তিনি আবার কিছুক্ষন পরে ফিরে এলে গোলমাল চরম আকার নেয়। ঘটনার সূত্রপাত এম টেক -এ ভরতি নিয়ে। বিশেষ সূত্রে জানা গিয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের স্নাতকোত্তরে(এম টেক) ৯০টি আসন রয়েছে। এতে ভরতি হতে গেলে গেট এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশিকা পরীক্ষায় পাশ করতে হবে। উপাচার্য আবু তালেব খান বলেন, “এই পরীক্ষায় কেউই পাশ করেননি। তাহলে কি করে সবাইকে ভরতি নেওয়া হবে?” এদিকে আন্দোলনকারীদের দাবি, তাদের সবাইকে ভরতি নিতে হবে। তাদের আরও অভিযোগ, এখন মোট আসনের ৩০ শতাংশ সংখ্যালঘু মুসলমানের জন্যে সংরক্ষিত করে দেওয়া হয়েছে। আগে এর পুরোটাই মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের জন্যে সংরক্ষিত ছিল। এসব নিয়ে উপাচার্যের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ কথা কাটাকাটি হয় পড়ুয়াদের। আর তখনই হয় উপাচার্য আবু তালেব খানকে।

Advertisements