সোনাখালীতে ধর্ষণের পরে খুন; অভিযুক্ত রায়হান মিদ্দেকে গ্রেপ্তার করেও ছেড়ে দিল পুলিশ

দঃ ২৪ পরগণার সোনাখালিতে গত ২৮ শে জুন খুন হয় ভগবতী ভুঁইয়া। পরদিন পার্শবর্তী গ্রামের আনেক সরদারের পুকুর থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে গ্রামবাসী ও পুলিশ। ভগবতী ভুঁইয়ার ভাই গোবিন্দ ভুঁইয়ার দাবি তার দিদিকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে।

এফ.আই.আর-এর কপি

এফ.আই.আর-এর কপি

গোবিন্দবাবু এই প্রতিবেদনের প্রতিনিধিকে জানান গত ২৮ শে জুন, শনিবার তার দিদি সন্ধ্যেবেলা সোনাখালি বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। নিকটবর্তী তেঁতুলতলা থেকে আনুমানিক ৭.৩০ থেকে ৮টা নাগাদ তাকে অপহরন করে দুষ্কৃতিরা। বিভিন্ন সূত্র থেকে গোবিন্দবাবু জানতে পারেন, ৭ নং সোনাখালি তেঁতুলতলার বাসিন্দা রাইহান মিদ্দে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত। রাইহানের একটি অটো আছে এবং নিজেই সেটা চালায়। গ্রামবাসীরা কোনও দিন তাকে এই পথে অটো চালাতে দেখেননি। কিন্তু ঘটনার দিন অনেকেই রাইহানেকে ঐ নির্দিষ্ট সময়ে অটো নিয়ে বেপরোয়া ভাবে তেঁতুলতলা দিয়ে যেতে দেখেছে।

গোবিন্দবাবু সহ গ্রামবাসীদের অনেকেরই ধারনা রাইহানেই ভগবতী দেবীকে অপহরন করে ধর্ষণ ও খুন করেছে। এখন প্রশ্ন হল রাইহানে একাই এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত না তার সাথে আরও কেউ ছিল। ২৯ তারিখ মৃতদেহ উদ্ধারের পর গোবিন্দ ভুঁইয়া সোনাখালি থানায় একটি কেস দায়ের করেন। যার নম্বর ২৯৫/১৪, আন্ডার সেকসন ৩০২ আই.পি.সি। এই এফ.আই.আর -এর ভিত্তিতে সোনাখালি থানার পুলিস রাইহানেকে গ্রেফতার করে। কিন্তু সঠিকভাবে তদন্ত না করেই কোন এক অজানা কারনে পুলিশ রাইহানেকে ছেড়ে দেয়। রাইহানেকে ছাড়ায় গ্রামবাসীদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়। অনেককেই কানাঘুষো বলতে শোনা যায় যে পুলিশ টাকা নিয়ে রাইহানেকে ছেড়ে দিয়েছে। গোবিন্দবাবু প্রতিনিধিকে জানিয়েছেন, তিনি এত সহজে হাল ছেড়ে দেবেন না। তিনি এর শেষ দেখে ছাড়বেন।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s