ভারতে শাখা খুলছে আল-কায়দা : আয়মন আল জাওয়াহিরি

আল-কায়দার ভারতীয় শাখা স্থাপনের কথা ঘোষণা করলেন সংগঠনের বর্তমান প্রধান আয়মন আল জাওয়াহিরি। ৩ সেপ্টেম্বর ৫৫ মিনিটের এক ভিডিও বার্তায় তিনি জানান, ভারতীয় উপমহাদেশ জুড়ে ‘জিহাদের পতাকা’ তুলে ধরতেই এই শাখার সূচনা। একই সঙ্গে আফগানিস্তানের কুখ্যাত তালিবান নেতা মোল্লা ওমরের প্রতি তাঁর আস্থা বজায় থাকবে বলেও জানিয়েছেন জাওয়াহিরি। বিশেষজ্ঞদের মতে, মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট-এর (আইএস) উত্থানে শঙ্কিত হয়েই জাওয়ারির এই পদক্ষেপ। প্রসঙ্গত, আই এস এখন সম্পূর্ণরূপে আল কায়দার নিয়ন্ত্রণের বাইরে। এই ঘোষণার কথা প্রকাশ্যে আসার পরে ভারতের ইন্টালিজেন্স ব্যুরো (আইবি) দেশের সমস্ত থানাকে সতর্ক করে দিয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ গোয়েন্দা বিভাগকে ভিডিওটির সত্যতা যাচাইয়ের পাশাপাশি এর উৎস সম্পর্কে খোঁজ নিতে বলেছেন।

ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যুর পরে ক্রমেই প্রাসঙ্গিকতা হারাচ্ছিল আল-কায়দা। জীবনের শেষ কয়েক বছর মূল সংগঠনের কাজ থেকে দূরে থাকলেও আল-কায়দা ও তাদের ছাতার তলায় থাকা অন্য জঙ্গি সংগঠনগুলির কাছে ওসামার ভূমিকা ও অনুপ্রেরণা ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আল-কায়দা বা অন্য জঙ্গি সংগঠনগুলির কাছে ওসামার সহযোগী মিশরের চিকিৎসক নেতা আল জাওয়ারির ছবি তেমন উজ্জ্বল নয়। বেশ কয়েক বছর ধরেই পরবর্তী নেতা হিসেবে জাওয়ারির ভূমিকার প্রবল সমালোচনা হচ্ছিল জঙ্গিমহলে। পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার পরে।

জেহাদের বিষয়ে আল-কায়দার ‘নরম মনোভাব’-এর নিন্দা করে আইএস তাদের থেকে সরে আসে। এর পরে সিরিয়ার পূর্ব ও ইরাকের পশ্চিম দিকের একটি বড় অংশ আইএস-এর নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। সেখানে ইসলামিক রাষ্ট্র স্থাপনের কথা ঘোষণা করে নিজেদের নেতা আবু বকর আল-বাগদাদিকে খলিফা পদে মনোনীত করে আইএস। শুধু সিরিয়া ও ইরাক নয়, এর মধ্যেই আফগান জঙ্গিদের একাংশও ইসলামিক স্টেটের মতাদর্শের সঙ্গে সহমত পোষণ করেছে। এই নিয়ে পাক-আফগান সীমান্তের দুর্গম আদিবাসী অঞ্চলে প্রচারও চলছে বলে জানা গিয়েছে।

এর পরেই আল জাওয়াহিরির ভিডিওটি প্রকাশ্যে আসে। ভিডিওয় মায়ানমার, বাংলাদেশ, অসম, গুজরাত, আমদাবাদ ও কাশ্মীরের মুসলমানদের উপর অবিচার ও শোষণের থেকে মুক্ত করার জন্য ‘আল-কায়দা ইন ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট’ স্থাপনের কথা জানান জাওয়ারি। বিশেষজ্ঞদের মতে, এর মধ্যে ভারত থেকে বেশ কিছু যুবক আইএস যোগ দিয়ে সিরিয়া ও ইরাকে যুদ্ধ করছে। কয়েক জন প্রাণও হারিয়েছে। অসম, গুজরাত, আমদাবাদ ও কাশ্মীরের মতো সাম্প্রদায়িক দিক থেকে উত্তেজনা প্রবণ এলাকার যুবকদের নিজেদের দলে টানতে আল জাওয়াহিরির এই পদক্ষেপ বলে ধারণা করা হচ্ছে। জাওয়াহিরির দাবি, জেহাদের পতাকা তুলে এই অঞ্চলগুলিতে নানা রাষ্ট্রের সীমানা মুছে দিয়ে এক মুসলিম রাষ্ট্র নির্মাণ করবে আল-কায়দার এই নতুন শাখা। মুসলিমরা ভারতের জনসংখ্যার ১৫ শতাংশ হলেও (প্রায় ১৮ কোটি) তা বিশ্বের মধ্যে তৃতীয় বৃহত্তম। তা ছাড়া মধ্যপ্রাচ্যে গুরুত্ব হারালেও পাক-আফগান সীমানায় এখনও আল কায়দার যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। ফলে বিষয়টিতে যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s