কলকাতায় হিন্দু সংহতির বিশাল পদযাত্রা : বিশ্বব্যাপী প্রতিক্রিয়া

গত ১৬ আগস্ট কলকাতায় ১৯৪৬ এর হিন্দুবীর গোপালচন্দ্র মুখোপাধ্যায় স্মরণে হিন্দু সংহতির উদ্যোগে এক বিশাল পদযাত্রা Kalam অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় সাত হাজার হিন্দু যুবক এই পদযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন। কলেজ স্কয়ার থেকে শুরু করে এই পদযাত্রা রাণী রাসমণি এভিনিউতে গিয়ে শেষ হয়। রাণী রাসমণিতে পদযাত্রার সমাপ্তি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সংহতির সভাপতি শ্রী তপন ঘোষ, দিল্লী থেকে আগত ভগত সিং ক্রান্তি সেনার অধ্যক্ষ তেজিন্দর পাল সিং বাগ্গা এবং স্বর্গীয় গোপালচন্দ্র মুখোপাধ্যায় – এর পৌত্র শ্রী শান্তনু মুখোপাধ্যায়। এই সভায় বিশেষ অতিথি রূপে উপস্থিত ছিলেন ইন্টারন্যাশনাল পিস্ গ্রুপ-এর সভাপতি, বিশিষ্ট বৌদ্ধ নেতা শ্রী করুণালঙ্কার ভিক্ষু। এছাড়া অনুষ্ঠান মঞ্চে ছিলেন কলকাতার বিশিষ্ট সমাজসেবী শ্রী অসিতাভ ভৌমিক।

শ্রী বাগ্গা তাঁর বক্তব্যে পশ্চিমবঙ্গের সাথে পাঞ্জাবের তুলনা করে বলেন, ১৯৪৭ সালে এই দুটি প্রদেশ একই পরিস্থিতির শিকার হয়েছিল। দেশভাগের সীমানা এঁকে দেওয়া হয়েছিল এই দুই রাজ্যের মাটির উপর দিয়ে। ভয়ংকর গণহত্যা, নারী ধর্ষণ, Dainik Jagaranধর্মান্তরকরণ এবং লুঠপাটের শিকার হতে হয়েছিল এই দুই রাজ্যের হিন্দুদের। সর্বস্বান্ত, উদ্বাস্তু হয়ে নতুন করে জীবন শুরু করে আজ পাঞ্জাব উন্নয়নের নিরিখে প্রথম সারিতে অবস্থান করছে, পক্ষান্তরে এই বাংলা সেইভাবে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি। এর কারণ বাংলার নোংরা রাজনীতি। তিনি বলেন আজ এরাজ্যের পাঠ্য পুস্তকে স্বাধীনতার কনিষ্ঠতম শহীদ ক্ষুদিরাম বসুকে সন্ত্রাসবাদী রূপে দেখানো হচ্ছে। নেতাজী, শ্যামাপ্রসাদের জন্মভূমি বাংলায় এই ঘৃণ্য চক্রান্তকে প্রতিহত করার জন্য তিনি আন্দোলনের ডাক দেন।

সংহতির সভাপতি শ্রী তপন ঘোষ তাঁর বক্তব্যে স্বর্গীয় গোপালচন্দ্র মুখার্জীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১৯৪৬ এ বাংলার হিন্দুদের রক্ষায় তাঁর ভূমিকার স্মৃতিচারণ করেন। তিনি বলেন, মুসলমানদের সেই প্রত্যক্ষ সংগ্রামের ভয়াবহ নরসংহারের হাত থেকে বাংলার হিন্দুদের The Hinduরক্ষায় গোপাল মুখার্জী যে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিলেন, সেই কারণেই আজ কলকাতা ভারতের মধ্যে অবস্থান করছে। সেই সময় নোয়াখালী, চট্টগ্রাম, ঢাকা এবং বরিশালে কোন গোপাল মুখার্জী ছিলেননা বলে আজ সেই স্থানগুলি ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। আজ বাংলার পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ। গ্রামে গ্রামে হিন্দুর জমি দখল হচ্ছে, হিন্দুর উপর অত্যাচার হচ্ছে। প্রশাসন statesman-17 copyহিন্দুর সুরক্ষা দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ। দেশবিভাগের পটভূমি আবার তৈরী হচ্ছে এই রাজ্যে। তাই নিজেদের সুরক্ষার দায়িত্ব হিন্দুদের নিজেদের হাতেই তুলে নিতে হবে, যুবকদের শপথ নিতে হবে – ‘আবার দেশবিভাজন রুখতে আমিই হবো গোপাল মুখার্জী’। অর্থাৎ সেই সময় গোপাল মুখার্জী হিন্দুদের রক্ষার্থে যে ভূমিকা পালন করেছিলেন, আজ বাংলার যুবকদের সেই ভূমিকা পালন করার আহ্বান করেন শ্রী ঘোষ।

গাজার বর্তমান পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে ইসরাইলকে পূর্ণ সমর্থন করে তিনি বলেন, হামাসের সন্ত্রাসবাদের হাত থেকে নিজের মাটি এবং নাগরিকদের জীবন রক্ষার সম্পূর্ণ অধিকার ইসরাইলের আছে। ইসরাইলের উপর ইসলামিক আগ্রাসনের তীব্র নিন্দা করে তিনি বলেন, হামাসের জঙ্গিরা নিজেদের নারী ও শিশুদের ঢাল হিসাবে ব্যবহার করে ইসরাইলের উপর যেভাবে রকেট ও মর্টার নিক্ষেপ করছে, তা অমানবিক। ভারতের হিন্দুরা এবং ইসরাইলের ইহুদিরা এই গভীর সমস্যায় দীর্ঘদিন ধরে জর্জরিত। তাই আমরা একই নৌকার সহযাত্রী। 365 Din

মুসলমানদের রাজনৈতিক কৌশল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলার মুসলমানেরা সি.পি.এম – কে ব্যবহার করে চাকরিতে সংরক্ষণ আদায় করে নিয়েছে, পরে তৃনমূলকে ব্যবহাEi Somoyর করে ইমাম ভাতা আদায় করেছে। এখন তারা বি.জে.পি – র দিকে হাত বাড়িয়েছে। পশ্চিম বাংলায় দলে দলে বি.জে.পি – তে যোগ দিচ্ছে মুসলমানেরা। তাদের কাছে টানতে রাজ্য বি.জে.পি আরও বেশি করে সেকুলার হওয়ার চেষ্টা করছে। ১৯৪৬ এর এই দিনগুলিতে শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জীর দেশবিভাগ রুখে দেওয়ার লড়াইকে স্মরণ করার পরিবর্তে আজ তারা ফুটবল দিবস পালন করছে। এই তোষণের রাজনীতিকে বাংলার হিন্দুরা বরদাস্ত করবে না।

 প্রসঙ্গত, ১৯৮০ সালে ইডেন গার্ডেনে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে কয়েকজন ফুটবলপ্রেমীর মৃত্যু হয়েছিল। সেই ঘটনার স্মরণে ১৬ আগস্ট রাজ্য বি.জে.পি-র পক্ষ থেকে একটি পদযাত্রার আয়োজন করা হয়েছিল।DSCF7061 DSCF7086 DSCF7099 IMG_6316 IMG_6323 IMG_6354 IMG_6422 IMG_6427 IMG_6435 IMG_6520 IMG_6532 IMG_6534

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s