কলকাতার যুবক আশ্রয় দিচ্ছে কাশ্মীর ও বাংলাদেশের জঙ্গিদের, খোঁজে এনআইএ

বাংলাদেশের নব্য জেএমবি ও কাশ্মীরের জঙ্গি ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের এরাজ্যে আশ্রয়ের ব্যবস্থা করে দিচ্ছে কলকাতারই এক যুবক। তার মাধ্যমেই স্লিপের সেলের কাছে বিভিন্ন বার্তা পৌঁছে যাচ্ছে। সে নিজেও ঘন ঘন ফোন করছে বাংলাদেশ ও কাশ্মীরে। বেনিয়াপুকুরের এই বাসিন্দাই এখন এনআইএ -এর মূল টার্গেট। জঙ্গিদের ডেরা বাঁধতে সাহায্য করার পাশাপাশি সে নিজেও জিহাদি কাজকর্ম করছে বলে গোয়েন্দাদের সন্দেহ।
কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত যুবকেরা তাড়া খেয়ে পালিয়ে কোথায় যাচ্ছে, তা নিয়ে তদন্ত করতে গিয়েই জানা যায়, কলকাতার একটি নম্বরে কাশ্মীর থেকে একাধিকবার ফোন এসেছে। যারা ফোন করেছে তারা সকলেই বিচ্ছিন্নতাবাদী জঙ্গি। ওই নম্বরে আড়ি পেতে আধিকারিকরা জানতে পেরেছেন, শুধু আশ্রয় দেওয়া নয়, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে তাদের লুকিয়ে থাকার ব্যবস্থাও করে দিচ্ছে মফিদুল ইসলাম লেনের ফারুক নামের ওই যুবক। সে নিজেও কাশ্মীর গিয়েছিলো বলে গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য রয়েছে।
শুধু কাশ্মীর নয়, বাংলাদেশ থেকেও ঘন ঘন ফোন আসছে তার কাছে। যেসব জায়গা থেকে কল আসছে, বাংলাদেশের সেসব জায়গাতে নব্য জেএমবি জঙ্গিদের একধিক প্রশিক্ষণ শিবির রয়েছে। সন্দেহভাজন ওই যুবক নিজেও বাংলাদেশে গিয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। সেখানে নব্য জেএমবি-এর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে একাধিক বৈঠকও হয়েছে। ব্যবসার সুবাদে বাংলাদেশে যাতায়াতের সূত্রে জঙ্গিদের সঙ্গে তার যোগাযোগ। তার মাধ্যমে এই সংগঠনের সদস্যরা কলকাতায় পা রাখছে এবং তারা পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ছে। তারপর নব্য জেএমবি-এর সদস্যরা নতুন জিহাদি নিয়েগের কাজ করছে। সেই সব সদস্যদের কাছে টাকাপয়সাও পৌঁছে দিচ্ছে ওই যুবক। যদিও ওই যুবক এখন কলকাতাতে নেই বলে খবর। .এনআইএ কর্তারা মনে করছেন, বাংলাদেশ ও কাশ্মীর ছাড়া অন্যত্র তার যাতায়ত রয়েছে। সেই বিষয়েও তথ্য জোগাড়ের চেষ্টা করছেন তারা।

Advertisements