ধুপগুড়িতে গরুচোর সন্দেহে গণধোলাইয়ে মৃত দুই

jalpaiguriশনিবার গভীর রাতে ধূপগুড়ির গাজংয়ের বারোহালিয়া গ্রামে গরুচোর সন্দেহে গণপিটুনিতে দুই যুবকের মৃত্যু হয়। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতদের নাম আনোয়ার হোসেন (১৯) এবং হাফিজুল শেখ (১৯)। প্রথমজনের বাড়ি কোচবিহারের পুন্ডিবাড়ি থানার সাকুনিবালা গ্রামে। দ্বিতীয়জন হাফিজুল, অসমের ধুবড়ি জেলার ছোট গুমা গ্রামের বাসিন্দা। গভীর রাতে একটি পিকআপ ভ্যানে কয়েকটি গরু নিয়ে তারা বারোহালিয়া গ্রামের রাস্তা ধরে যাচ্ছিল। স্থানীয় বাসিন্দারা তাদের গরুচোর বলে সন্দেহ করে আটক করে। পিকআপ ভ্যানের চালক সুযোগ বুঝে পালিয়ে গেলেও দু’জনকে গণপিটুনি দিয়ে মেরে ফেলা হয়। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে রাস্তা ভুল করে তারা ওই গ্রামে ঢুকে পড়েছিল। বাসিন্দাদের সন্দেহ হওয়ায় তাদের রোষের মুখে পড়ে দুই যুবকের মৃত্যু হয়। তবে কেন গভীর রাতে তারা গরু নিয়ে যাচ্ছিল তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে।

জেলার পুলিশ সুপার অমিতাভ মাইতি বলেন, ওই ঘটনায় মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি খুনের অভিযোগ হয়েছে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ধূপগুড়ির ওই গ্রামে বেশকিছু দিন ধরেই গরু চুরি হচ্ছিল। শনিবার রাত ২টো নাগাদ পিকআপ ভ্যানে বেশকিছু গরু নিয়ে যেতে দেখে বাসিন্দাদের সন্দেহ হওয়ায় তারা গাড়িতে থাকা তিন জনকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। সদুত্তর না পাওয়ায় স্থানীয়রা ঘটনাস্থলেই দু’জনকে পিটিয়ে মারে। এদিকে গত কয়েক দিনে এলাকায় গরু চুরির ঘটনা বাড়তে থাকায় বাসিন্দারা রীতিমতো রাত পাহারা দিচ্ছিলেন। সম্প্রতি কোতোয়ালি থানার বেরুবাড়িতে গরু পাচারকারী সন্দেহে এক জনকে গণধোলাই দেয় বাসিন্দারা। ধূপগুড়ির ঘটনায় পুলিশ জানতে পেরেছে, শনিবার ধূপগুড়ি হাট থেকে গরুগুলি কিনে কোচবিহারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। কিন্তু গভীর রাতে তারা কেন ভুল পথে গেল সেই প্রশ্নের উত্তরই পুলিশ খুঁজছে।

Advertisements