মাসুদের লন্ডনে হামলা ৮২ সেকেন্ডের

masudখালিদ মাসুদ একাই হামলা যুক্তরাজ্যর পার্লামেন্টের বাইরে হামলা চালিয়েছিল। ৮২ সেকেন্ডের মধ্যে ওই হামলার কাজ শেষ করেন খালিদ মাসুদ। স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের বরাত দিয়ে বিবিসি এবং দ্য টেলিগ্রাফের খবরে এ কথা বলা হয়েছে। লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশের উপসহকারী কমিশনার নেইল বসু বলেন, হামলাকারী কেন এই হামলা চালিয়েছিল তা আমরা কোনো দিন জানতে পারব না। এটা আমাদের সবাইকে মেনে নিতেই হবে।
খালিদ মাসুদ গত ২২শে মার্চ,বুধবার পার্লামেন্টের বাইরে কিছু পথচারীর ওপর গাড়ি উঠিয়ে দেয়। এরপরই পুলিশের একজন কর্মকর্তাকে ছুরিকাঘাত করেন। পরে পুলিশের হামলায় খালিদ মাসুদ প্রাণ হারায়। পথচারীদের ওপর গাড়ি উঠিয়ে দেওয়ার ঘটনায় চারজন নিহত হন। পুলিশ এ ঘটনায় মোট ১০ জন কে গ্রেপ্তার করেছে। এ ঘটনার বর্ণনা দিয়ে যুক্তরাজ্যর গোয়েন্দারা বলছেন, মাত্র ৮২ সেকেন্ডের মধ্যে ওই হামলার কাজ শেষ হয়ে যায়।
৮২ সেকেন্ডে আক্রমণ
১৪: ৪০: ০৮—ওয়েস্টমিনস্টার ব্রিজে উত্তর দিকে গাড়ি নিয়ে মাসুদের আক্রমণ
১৪: ৪০: ৩৮—ব্রিজের ফুটপাথ এবং রাস্তা বরাবর গাড়ি চালিয়ে মাসুদ ওয়েস্ট মিনস্টার প্যালেসের ঘেরার বেড়া ভেঙে ফেলে
১৪: ৪০: ৫৯—৯৯৯-এ ঘটনার কথা জানিয়ে পুলিশের কাছে প্রথম ফোন
১৪: ৪১: ৩০—মাসুদ গাড়ি থেকে নেমে গিয়ে পার্লামেন্টের বাইরে সশস্ত্র একজন পুলিশকে ছুরিকাঘাত করেন। পরে পুলিশের গুলিতে মাসুদ নিহত।

নেইল বসু বলেন, আমরা এখনো মনে করছি ওই দিন মাসুদ একাই হামলা চালিয়েছে। এ ছাড়া আরও হামলা চালানো হবে এমন পরিকল্পনার কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই। কোনো সন্ত্রাসী প্রচারণা কিংবা অন্য কোনো কিছুতে উৎসাহী হয়ে মাসুদ হামলা চালিয়েছিল কি না তা আমরা জানতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। গত বুধবারের হামলাকারী খালিদ মাসুদ একজন ধর্মান্তরিত মুসলিম বলে মনে করছে যুক্তরাজ্যের পুলিশ। ব্রিটিশ শ্বেতাঙ্গ জ্যানেট এলমস তার মা। বাবার পরিচয় জানা না গেলেও ধারণা করা হচ্ছে, তিনি একজন কৃষ্ণাঙ্গ। তদন্তকারীরা বলেছেন, ৫২ বছর বয়সী এই হামলাকারী ২০০৯ সাল থেকে খালিদ মাসুদ হিসেবে নিজের পরিচয় দিতে শুরু করেন। জন্মের সময় খালিদ মাসুদের নাম রাখা হয়েছিল অ্যাড্রিয়ান এলমস। তখন তাঁর মায়ের বয়স ছিল মাত্র ১৭ বছর। জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) হামলাকারীকে নিজেদের যোদ্ধা বলে দাবি করলেও হামলাকারীর নাম প্রকাশ করেনি। যুক্তরাজ্যের পুলিশ মনে করছে, আইএস আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে থাকতে পারেন তিনি।