তিন তালাকের পরে অ্যাসিড অ্যাটাক, তাই হিন্দু হতে চান রেহানা

ফোনেই ‘তিন তালাক’ দিয়েছিল স্বামী। সেই ‘তিন তালাক’ এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন উত্তরপ্রদেশের রেহানা রাজা। আর তারপরই শ্বশুরবাড়ির লোকেরা ১৪ এপ্রিল অ্যাসিড হামলা করে তাঁর উপর। তাই ইসলাম ছেড়ে এখন হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করতে চান রেহানা।
ইন্ডিয়া.কম এ প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, রেহানা মনে করেন হিন্দু ধর্মে বিয়ে ও ডিভোর্সের ক্ষেত্রে নারী ও পুরুষের সমান অধিকার আছে। ‘তিন তালাক’ এর প্রতিবাদে বহু মুসলিম মহিলাই সরব হয়েছেন। মুসলিম ধর্মে যেমন ‘তিন তালাক’, বহু বিবাহ, হালালার প্রচলন আছে তেমন হিন্দুদের মধ্যে নেই বলে মনে করেন রেহানা। তাই এবার ইসলাম ছেড়ে হিন্দু হতে চান, ইন্ডিয়া.কমের কাছে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে এমনই জানিয়েছেন তিনি।
১৯৯৯ সালে রেহানা তার স্বামী মতলুবের সঙ্গে আমেরিকায় যান। সেখানে তাঁর স্বামী তাকে খুব মারধর করত বলে জানান তিনি। এরপর ২০১১তে রেহানার মা মারা গেলে ভারতে রেহানা ও তাঁদের ছেলেকে রেখে নিউজিল্যান্ড চলে যায় মতলুব। সেখান থেকে ফোন করে রেহানাকে তিন তালাক দেয় সে। তারপরই তিনি তালাক প্রথার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন রেহা। সেই রাগে আবার রেহানার দেওর মকবুল হোসেন, ননদ পরভিন ও শাকিলা তার উপর অ্যাসিড দিয়ে হামলা করে।
এলাহাবাদ হাই কোর্ট ‘তিন তালাক’ প্রথাকে অসাংবিধানিক জানানোর পরো শ্বশুরবাড়ির লোকজন রেহেনাকে ফিরিয়ে নেয়নি। তাই এরকমও দিন গেছে যখন রেহানা ও তার ছেলেকে না খেয়ে দিন কাটাতে হয়েছে। তাই সমাধান স্বরূপ এখন ধর্ম পরিবর্তনের কথাই ভাবছেন রেহানা রাজা।

Advertisements