জেল পালানো খলিস্তানি জঙ্গিনেতা পুলিশের জালে

khalistani-terrorist-harminder-singh-mintoo-webপুলিশের ছদ্মবেশে জেলে ঢুকে রীতিমতো ফিল্মি কায়দায় খলিস্তানি জঙ্গিনেতাকে নিয়ে চম্পট দিয়েছিল পাঁচ অজ্ঞাত পরিচয় বন্দুকধারী৷ কিন্তু শেষরক্ষা হল না৷ ওই ঘটনার ২৪ ঘন্টার মধ্যে, সোমবার সকালে ফের পুলিশের হাতে ধরা পড়ে গেল চম্পট দেওয়া জঙ্গিনেতা হরমিন্দর সিং মিন্টু৷ সংবাদসংস্থা এএনআই সূত্রে এমনটাই জানা গিয়েছে৷ এদিন সকালে দিল্লি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাকে৷ দিল্লি ও পাঞ্জাব পুলিশের যৌথবাহিনী দিল্লি থেকে ওই জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছে বলে সংবাদসংস্থা সূত্রে খবর৷

রবিবার সকালে পাঞ্জাবের পাতিয়ালার নাভা সেন্ট্রাল জেল থেকে জঙ্গিনেতার পালানোর ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে৷ পাঞ্জাবের উপ-মুখ্যমন্ত্রী সুখবীর সিং এই ঘটনার পিছনে পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইয়ের সক্রিয় মদতের আশঙ্কা করেছিলেন৷ গতকালই পলাতক জঙ্গিদের খোঁজে তল্লাশি চালানোর সময় বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সূত্র পায় পুলিশ৷ তারপরই খবর ছড়িয়ে যায় ভিন রাজ্যে৷ ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পরে সক্রিয় হয় দিল্লি ও উত্তরপ্রদেশ পুলিশ৷ রবিবারই, উত্তরপ্রদেশ পুলিশের সহযোগিতায় ওই রাজ্যের শামলি জেলার কৈরানা থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রমাণ সমেত পাকড়াও করা হয় পরমিন্দর সিং নামে মধ্য চল্লিশের এক ব্যক্তিকে৷ উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ডিজি জাভেদ আহমেদের বক্তব্য, ইণ্টেলিজেন্স ব্যুরোর কাছ থেকে নির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে পরমিন্দরকে গ্রেফতার করা হয়৷ যে তিনটি গাড়িতে করে জঙ্গি নেতারা পাঞ্জাবের জেল থেকে পালিয়েছিল তার মধ্যে একটি এসইউভি গাড়ির চালক ছিল পরমিন্দর নিজে৷ তার কাছ থেকে একটি এসএলআর ও তিনটি রিভালবার বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে৷ তাকে জেরা করা হচ্ছিল৷ সেখান থেকেও একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সূত্র পায় পুলিশ যার মাধ্যমে এদিন হরমিন্দরকে ধরতে দিল্লি পুলিশের সুবিধা হয়৷

পরমিন্দরকে গ্রেফতার করার পরই সতর্ক করে বার্তা পাঠানো হয় আশপাশের ১১টি রাজ্যে৷ খলিস্তানি লিবারেশন ফোর্স (কেএলএফ) প্রধান হরমিন্দর সিং মিন্টুর মতো সন্ত্রাসবাদী জেল থেকে পালাতে সমর্থ হওয়ায় রীতিমতো চিন্তায় ছিল প্রশাসন৷ অন্তত ১০টি সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৪ সালে দিল্লি বিমানবন্দর থেকে গ্রেফতার করা হয় হরমিন্দরকে৷ ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় রাজ্যের ডিরেক্টর জেনারেল অফ প্রিজনকে সাসপেন্ড করেন পাঞ্জাবের উপমুখ্যমন্ত্রী সুখবীর সিং বাদল৷ সেই সঙ্গে বরখাস্ত করা হয়েছে নাভা জেলের সুপার এবং ডেপুটি সুপারকেও৷ এর আগে, গত অক্টোবরেই এক কারারক্ষীকে খুন করে, অন্য কারারক্ষীদের হাত-পা বেঁধে ভোপালের সেন্ট্রাল জেল ভেঙে পালিয়েছিল জঙ্গি সংগঠন সিমি-র আট সদস্য৷